ভ্যান চালিয়ে দুই ছেলেকে চীনে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াচ্ছেন বাবা

নিজেরও স্বপ্ন ছিল শিক্ষিত হওয়ার। কিন্তু অভাবের কারণে তা করতে পারেননি মকিম উদ্দীন। কোনোমতে নাম দস্তখত ছাড়া আর কোনো অক্ষরজ্ঞান নেই তার। তবে সে আক্ষেপ তাকে সব সময় তাড়া করত। তাই নিজে না পারলেও সন্তানদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলেন।

 

মকিম উদ্দীনের সেই স্বপ্ন এখন বাস্তবতার মুখ দেখতে যাচ্ছে। শেষ সম্বল জমিটুকু বিক্রি করা ও ভ্যান চালিয়ে আয় করা টাকা দিয়ে দুই ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াচ্ছেন চীনে।

 

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসুও ইউনিয়নের জোতপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মকিমউদ্দীন। দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে তিনি রিকশা চালিয়েছেন। ৫ বছর ধরে ভ্যান চালাচ্ছেন। এখন দৈনিক আয়ের একটা অংশ দিয়ে সংসারের ভরণপোষণ করছেন তিনি। বাকি টাকা দুই সন্তানের পড়াশোনার খরচ হিসেবে চীনে পাঠিয়ে দেন।

 

মকিম উদ্দীনের দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। বড় দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন অনেক আগে। বড় ছেলে হবিবুর রহমান চীনের জিয়াংসু ইউনিভার্সিটিতে মেকানিক্যাল ডিজাইন অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচার অটোমেশন বিভাগে পড়াশোনা করছেন। ছোট আবুল হাসিম একই ইউনিভার্সিটির মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করছেন।

 

হাজারো কষ্টে সন্তানদের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ায় সমাজে এক সফল ও গর্বিত বাবার সম্মানের জায়গা তৈরি হয়েছে মকিম উদ্দীনের। তার পরিবারও সমাজের কাছে এক আদর্শ পরিবার হিসেবে ভূষিত হচ্ছে।

 

মকিম উদ্দীন ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমি ২৮ বছর পা দিয়ে রিকশা চালিয়েছি। এখন ব্যাটারিচালিত রিকশা চালাচ্ছি পাঁচ বছর ধরে। ছোটবেলায় আমাদের অনেক অভাব থাকায় পড়াশোনা তেমন করতে পারিনি। আমাদের সময় যাদের আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল, তারা শুধু পড়াশোনা করত। তবে আমি পারিনি, তাই ইচ্ছা ছিল আমার সন্তানদের অন্তত পড়াশোনা করাব।

 

তিনি আরও বলেন, এক বিঘা আবাদি জমি ছিল আমার। বড় ছেলে বলল, সে চীনে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা করবে। আমি ভেবেছি ছেলে উচ্চশিক্ষিত হলে অনেক আবাদি জমি কিনতে পারবে। সে জন্য জমিটা বিক্রি করে ছেলেকে চীনে পাঠিয়েছি। পরে আবার ছোট ছেলেও গেছে। এখন প্রতি মাসে তাদের টাকা পাঠাতে হয়।

 

একমাত্র আয়ের পথ ভ্যান, এমনটা জানিয়ে বৃদ্ধ বলেন, যা আয় হয়, তার সবটুকু জমা করে পাঠাই দিই। আমরা স্বামী-স্ত্রী কখনো খাই, কখনো না খেয়ে থাকি। কাউকে বলা হয় না এ কষ্টের কথা। কোনো দিন ভ্যান নিয়ে বাসায় বসে থাকি না। আমি বসে থাকলে টাকা পাঠাব কী করে। আমার কষ্ট হোক, তবু তারা ভালো ইঞ্জিনিয়ার হোক, এটাই চাওয়া আমার। সবাই আমার সন্তানদের জন্য দোয়া করবেন।

 

ভ্যানচালক মকিম উদ্দীনের স্ত্রী হুসনে আরা বেগম বলেন, আমার দুই মেয়ে ও দুই ছেলে। মেয়ে দুটাকে অনেক কষ্ট করে বিয়ে দিছি৷ আর ছেলে দুটাকে পড়াশোনার করানোর ইতিহাস মনে হলে আমার বুকটা ফেটে যায়। মনের অজান্তেই চোখ থেকে কান্না বের হয়। কখনো খায়ছি, কখনো খাইনি। তবু সন্তানদের পড়াশোনা চালিয়েছি। পৈতৃক এক বিঘা আবাদি জমি ছিল। ছেলে দুটোর জন্য তা বিক্রি করতে হয়েছে। একমাত্র ভ্যানটি আমাদের সম্বল।

 

তিনি আরও বলেন, বাবুর বাবার অনেক বয়স হয়েছে। তবু প্রতিদিন ভ্যান নিয়ে বের হয়। কোনো দিন তিনি বসে থাকেন না। আজকে ছেলে দুটা চীনে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা করছে। প্রতি মাসে টাকা দেওয়ার লাগে। ছেলে দুটাও অনেক কষ্ট করে পড়াশোনা করে। আমাদের যত কষ্টই হোক, আমরা তাদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করাতে চাই। আপনারা সকলে দোয়া করবেন আমাদের সন্তান দুটোর জন্য।

 

চীন থেকে মোবাইল ফোনে কথা হয় হবিবুর রহমানের সঙ্গে। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরা এখানে ২০১৯ সালে ডিপ্লোমা করতে আসি। এখানে পড়াশোনা করতে আসার সময় আমার বাবার শেষ ৩৩ শতাংশ জমিটুকু বিক্রি করে দিতে হয়। এ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আমি আমার মা-বাবাকে চীনে আসার বিষয়টি অবগত করি। আমার বাবা কোনো প্রশ্ন না করেই রাজি হয়ে যান। তাই আমাদের দুই ভাইয়ের জন্য বিষয়টি অনেক সহজ হয়ে যায়। এতে আমার বাবার মধ্যে তীব্র আগ্রহ দেখলাম।

 

 

তিনি আরও বলেন, এখানে আসার পর আমার বাবা ভ্যান চালিয়ে অনেক কষ্টে আমাদের টাকা পাঠান। আমার বাবা মাঝেমধ্যেই আমাকে বলতেন, বাবা, আমার অনেক কষ্ট হচ্ছে তোমাদের যে কবে কিছু একটা হয়। আমি আমার বাবাকে সান্ত্বনা দিতাম এই বলে, বাবা, আমরা তো দুই ভাই এখানে ভালোমতো পড়াশোনা করি। ইনশা আল্লাহ খুব শিগগিরই আপনি একটা সুসংবাদ পাবেন।

 

 

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি ও আমার ছোট ভাই পড়াশোনা শেষ করে বাংলাদেশে ফিরে গিয়ে দেশের জন্য কাজ করব। কারণ, আমাদের দেশ উন্নত দেশগুলোর থেকে এখনো অনেকটাই পিছিয়ে। আমরা আমাদের মেধা দেশের জন্য কাজে লাগাতে চাই। আমাদের খুব ইচ্ছা আমরা গবেষণামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করব।

প্রতিবেশী নিপু আক্তার বলেন, সম্পর্কে তারা আমার চাচা-চাচি হন। কত কষ্ট করে চাচা তাদের পড়াশোনা করাচ্ছেন, তা বলার মতো নয়। আমারও সন্তান আছে। আমি ভাবি, তাদের মতো পরিশ্রম করে সন্তানদের পড়াশোনা করাতে পারব কি না। তবে তারা আমাদের স্বপ্ন দেখার সুযোগ করে দিয়েছেন। কষ্ট ও পরিশ্রম করে সব কাজ করা যায়, এর দারুণ দৃষ্টান্ত চাচার দুই ছেলে।

 

 

প্রতিবেশী ব্যবসায়ী নুরুজ্জামান বাবলু বলেন, তারা দিনে এনে দিনে খান। এর মধ্যেও অনেক কষ্ট করে সন্তানদের পড়াশোনার খরচ চালিয়ে যাচ্ছেন মকিম চাচা। অনেক অভাবেও তারা সন্তানদের পড়াশোনা বন্ধ রাখেননি। বিষয়টি আসলে অনুপ্রাণিত হওয়ার মতো। আমরা আশা করছি, তারা দক্ষ প্রকৌশলী হয়ে এলাকা ও দেশসেবায় নিয়োজিত থাকবেন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যোবায়ের হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, ভ্যান চালিয়ে বৃদ্ধ বাবা দুই ছেলেকে চীনে পড়াশোনা করাচ্ছেন, বিষয়টি আসলেই অনুপ্রাণিত হওয়ার মতো। এখান থেকে বোঝা যায় যদি মানুষের ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকে, তবে সফলতার দিকে এগিয়ে যাওয়া যায়। এটি আমাদের জন্য আনন্দায়ক বিষয়। যদি কখনো তার প্রয়োজন হয় সহযোগিতার, তবে উপজেলা প্রশাসন তাদের পাশে দাঁড়াবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.